পেকুয়ায় নদীতে দিনমজুরের সলিল সমাধি

image103-600x321.jpeg

স্টাফ রিপোর্টার, পেকুয়া
পেকুয়ায় নদীতে এক দিনমজুরের সলিল সমাধি হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। ৩২ ঘন্টায় খোঁজ মিলেনি হতভাগা এ দিনমজুরের। তার মৃত্যু নিশ্চিত বলে স্থানীয় সুত্রে জানায়। এ দিকে সাতার কেটে নদী পারাপারের সময় এ দিনমজুর পানিতে ডুবে মারা যায়। বুধবার সকাল ১০ টা থেকে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। তার মৃতদেহ উদ্ধার করতে হাজার হাজার মানুষ নদীর দুপাশে জড়ো হয়। নদীর পাড়ে খতমে কোরআন ও মিলাদ পড়ানো হয়। স্থানীয়রা জানায়,দুপুরের দিকে তার মৃতদেহ পানিতে ভাসছিল। সংক্ষিপ্ত সময়ে ওই দেহ ফের পানিতে তলিয়ে যায়। হৃদয়বিদারক এ দৃশ্য প্রত্যক্ষ করতে নারী-পুরুষ নদীর দু’পাড়ে জড়ো হয়। উপজেলার মগনামা ও রাজাখালী ইউনিয়নের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া প্রবাহমান ভোলা নদীতে প্রানহানির এ ঘটনা ঘটে বুধবার ২১ মার্চ সকাল ১০ টার দিকে। নিখোঁজ ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ ইদ্রিস(২৪)। তিনি উপজেলার সদর ইউনিয়নের পশ্চিম বাইম্যাখালী গ্রামের জয়নাল আবেদিনের ছেলে। পেশায় দিনমজুর বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। স্থানীয় সুত্র জানায়, ওই দিন সকালে ইদ্রিস তার খালার বাড়ি রাজাখালী বদিউদ্দিন পাড়া থেকে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। বদিউদ্দিন পাড়ার দক্ষিন রাস্তার মাথায় এসে তিনি নদী সাতার কেটে মগনামা ইউনিয়নের শরতঘোনায় পৌছার চেষ্টা করে। এ সময় প্রবাহমান ভোলা নদীতে তার সলিল সমাধি ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা তাকে নদী পার হতে দেখছিলেন। এ সময় কুলে না পৌছায় তাকে খোঁজতে থাকে তারা। মুহুর্তের মধ্যে বিষয়টি জানাজানি হয়। এ সময় তাকে খোঁজতে নদীর দু’পাড়ে রাজাখালী ও মগনামা ইউনিয়নে শত শত মানুষ জড়ো হয়। দীর্ঘক্ষন পানিতে তলিয়ে থাকায় মানুষের মাঝে হৃদয় বিদারক দৃশ্য দেখা দেয়। নিখোঁজ থাকার খবর তার পরিবারে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় প্রিয়জনের খোঁজে তারাও নদীর ওই পয়েন্টে এসে জড়ো হয়। বিলাপ ও হৃদয়বিদারক আহাজারিতে বাতাস ভারী হয়। মানুষ তার মরদেহ উদ্ধারে নদীতে জাল পাতে। তবে দমকল বাহিনীর উদ্ধার কর্মীরা ওই সময় থেকে সেখানে উপস্থিত থাকতে দেখা যায়নি বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। স্থানীয়রা জানায়, বুধবার সকাল ১০ টা থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত তার খোঁজ মেলেনি। নদীর পাড়ে বুধবার দুপুরের দিকে খতমে কোরআন ও মিলাদ পড়ানো হয়। বারবাকিয়ার চেয়ারম্যান এ,এইচ,এম বদিউল আলম সহ একদল ওলামায়ে কেরাম দু’দিন ধরে তার খোঁজে মহান সৃষ্টিকর্তার দরবারে প্রার্থনা করছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে আকষ্মিক তার মরদেহ পানিতে ভেসে উঠে। এ সময় হৈছৈ পড়ে। তবে কিছুক্ষনের মধ্যে আবার মৃতদেহ পানিতে তলিয়ে যায়।

Top