পেকুয়ায় নৌঘাঁটির লবণ চাষীকে ছুরিকাঘাত করল দুবৃর্ত্তরা

IMG_20180325_151135.jpg

স্টাফ রিপোর্টার, পেকুয়া
পেকুয়ায় লবণ চাষীকে ছুরিকাঘাত করল দুবৃর্ত্তরা। মুমুর্ষূ অবস্থায় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তার অবস্থা গুরুতর। মাথায় ছুরিকাঘাত ও শরীরের বিভিন্ন অংশে থেতলে দেয় হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে। রবিবার ২৫ মার্চ দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের শুদ্ধাখালি পাড়ায় সাবমেরিন নৌঘাটির জমিতে এ ঘটনা ঘটে। আহত লবণ চাষীর নাম মোহাম্মদ হাসান ওরফে কালন(৩০)। তিনি এ ইউনিয়নের জালিয়াপাড়া এলাকার বদিউল আলমের ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মোহাম্মদ হাসান ওরফে কালন নৌবাহিনীর অধিগ্রহনকৃত জমিতে লবণ চাষ করছিলেন। ৪ কানি জমি থেকে হাসান বিপুল পরিমান লবণ মাঠে মজুদ করে। স্থানীয়রা জানায়, ওই দিন দুপুরে হাসানকে ধরে নিয়ে আসতে একটি শক্তিশালী গ্রুপ তার জমিতে হানা দেয়। এ সময় বেদেরবিল পাড়ার নুুরুল আলমের ছেলে শহিদুল ইসলাম ও চান্দারপাড়ার মৃত আবদু রহমানের ছেলে জিয়াবুল করিম হাসানকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতসহ হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। প্রত্যক্ষদর্শী মোহাম্মদ কাইছার জানায়, তারা ২ জনসহ কয়েকজন অজ্ঞাত ভাড়াটে লোকজন মাঠে গিয়ে হাসানের কাছ থেকে টাকা দাবী করছিল। এ নিয়ে বাকবিতন্ডা হয়। এ সময় তাকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। হাসানের স্ত্রী সালমা সোলতানা জানায়, আমার স্বামীকে চাঁদার জন্য ছুরি মেরেছে। লবণ বিক্রির ২০ হাজার টাকা ও একটি মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয়। সরকারী জমিতে আমরা অসহায় মানুষগুলো লবণ চাষ করছি। কেন চাঁদা দেবে। এর প্রতিবাদ করছিল স্বামী। তারা এতে ক্ষিপ্ত হয়ে এ কাজ করে। আমার ২ শিশুপুত্র জিসান ও রিয়ান এদের বাবাকে মাঠে সহযোগিতা করছে। তারা কঠোর পরিশ্রম করে এসব লবণ মজুদ করে। এখন ওই লবণ লুট করার চেষ্টা করছে ওই চাঁদাবাজরা। জিয়াবুল করিম ও শহিদ এর আগেও আরও বেশকিছু চাষাকে চাঁদার দাবীতে মারধর ও হামলা করে। থানায় আগেও এদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে।

Top