পেকুয়ায় কুটির শিল্প মেলার উদ্বোধন

Kuter22222.jpg

স্টাফ রিপোর্টার, পেকুয়া :
পেকুয়ায় বস্ত্র, হস্ত ও কুটির শিল্প প্রদর্শনী বিক্রয় মেলার উদ্বোধন আজ রবিবার ১ এপ্রিল। ওই দিন বিকেলে আনুষ্টানিক বিক্রয় মেলার শুভ উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। উপজেলার সদর ইউনিয়নের প্রাণকেন্দ্র চৌমুহনীর উত্তরপ্রান্তে মৌলভীপাড়া খেলার মাঠে এ মেলার উদ্বোধন হবে। আয়োজক কমিটি বস্ত্র, হস্ত ও কুটির শিল্প প্রদর্শনী বিক্রয় মেলার সুচনা ও আনুষ্টানিক উদ্বোধন করতে সব প্রস্তুতি শেষ করে। দীর্ঘ সময় থেকে এ মেলার আনুষ্টানিকতার কাজ চলছিল। সর্বশেষ প্রতীক্ষিত এ মেলা ১ এপ্রিল অনুষ্টিত হচ্ছে পেকুয়ায়। এ দিকে কুটির শিল্প প্রদর্শনী মেলাকে ঘিরে পেকুয়ায় প্রাণচাঞ্চল্য লক্ষ্য করা গেছে। একটি নান্দনিক ও বৈচিত্রময় আয়োজন সম্পন্ন করতে পেকুয়ায় আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহন করা হয়েছে। জানা গেছে, মাসব্যাপী কুটির শিল্পমেলা এ মাঠে চলবে। মেলায় দর্শক¯্রােতা ও আগতদের দৃষ্টি আকৃষ্ট করতে মেলা প্রাঙ্গনে ব্যাপক আলোক সজ্জা সজ্জিত করা হয়েছে। আগতদের দৃষ্টি আকৃষ্ট করতে মৌলভীপাড়া খেলার মাঠকে নান্দনিক সাজে সজ্জিত করা হয়েছে। বিশেষ করে মাঠের চতুরদিকে আলাদা বলয় করা হয়েছে। মাঠের মধ্যখানে একটি সুউচ্চ টাওয়ার স্থাপিত করা হয়েছে। রং বেরংয়ের বাতির আলোক ছটায় মেলা প্রাঙ্গনকে প্রানোচ্ছল করা হয়েছে। আয়োজক কমিটি এ প্রথম পেকুয়ায় ব্যতিক্রমধর্মী মেলার উদ্যোগ নেয়। মেলার জাদু প্রদর্শনী চলবে প্রতিদিন, এ ছাড়া দৃষ্টিনন্দন ডিজিটাল নাগরদোলা বসানো হয়েছে। প্রতিদিন তরুন তরুনীরা এ নাগরদোলায় ছড়ে আকাশ প্রদক্ষিন করবে। বিনোদনমুলক বিচিত্রা আয়োজন সংযুক্ত করা হয়েছে মেলায়। বিশেষ আকর্ষন হচ্ছে ইলেকট্রিক নৌকা। এ তরিতে ছড়ে আনন্দ ভ্রমন করবে দর্শনার্থীরা। এ ছাড়া কার রেসিং আছে। হাতি ঘোড়ার চর্কি প্রদর্শন হবে। ডিজিটাল ট্রেন এ মেলার বিশেষ দৃষ্টিনন্দন আকর্ষন। একটি গোল চত্তুর প্রদক্ষিন করবে এ ট্রেন। যাত্রীরা ট্রেনে টিকেট কেটে উপভোগ করবেন আনন্দ ভ্রমন। ট্রেনের রাস্তা তৈরী হয়েছে। মিটার গেজ ও ব্রডগেজ রাস্তায় ট্রেন যাতায়াত করবে। ওই আয়তনের গোলচত্তরের ট্রেন চলাচল সড়কে কয়েকটি স্টেশন আছে। রেলওয়ের কর্মকর্তারা ট্রেন ভ্রমনে দর্শনার্থীদের সেবা দিবে। হাতির দু’পক্ষের ফুটবল লড়াই দেখবে দর্শক। বনের প্রানী হাতিরা খেলবে ফুটবল। সার্কাস প্রদর্শনী চলবে প্রতিদিন। শিশু কার থাকবে মেলা প্রাঙ্গনে। এ ছাড়া বস্ত্র, হস্ত ও কুটির শিল্প প্রদর্শনী মেলায় শতাধিক স্টল বসছে। সব রকমের পন্যের প্রদর্শনী চলবে এ সব স্টলে। দেশী সুশ^াদু খাবারের পন্যের সমাহার ঘটবে এ মেলায়। বস্ত্র বিক্রি হবে এ সব স্টলে। এ ছাড়া কুটির শিল্প প্রদর্শনীর যাবতীয় পন্যের সম্ভার তৈরী হবে মেলা প্রাঙ্গনে। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা এ মেলায় দেশীয় তৈরী ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প পন্য মেলায় প্রদর্শনী করবে। দর্শনার্থীরা উপভোগ্য আয়োজনের পাশাপাশি কেনাকাটায় মনোযোগী হবে এ মেলায়। রাজধানী ঢাকা বন্দর নগরী চট্রগ্রাম সহ সব অঞ্চলের তৈরী পোশাক সামগ্রী বিক্রি চলবে স্টলগুলোতে। মহিলা-পুরুষ ও শিশুদের নিত্য ব্যবহার যোগ্য পন্য পাবেন এ মেলায়। এ সব বিক্রির আলাদা প্যাভেলিয়ন সাজানো হয়েছে। বাংলাদেশের বিখ্যাত প্রস্তুতকারক প্রতিষ্টানের তৈরী পোশাক ও ব্রান্ড পন্যের মালামাল ও দ্রব্য এ মেলায় পাওয়া যাবে। পেকুয়ায় মেলার এ আয়োজনে প্রানের আমেজ তৈরী হয়েছে। আনুষ্টানিকতার আগেও এ মেলাকে ঘিরে উচ্ছাস ও প্রেরনা দেখা দিয়েছে। চৌমুহনীর অল্প দুরে এবিসি সড়কের পাশের্^ এ মেলার আয়োজন। আঞ্চলিক মহাসড়কে হওয়ায় মেলার আকর্ষন বেড়ে গেছে। চট্রগ্রাম ও কক্সবাজার সড়কের এ পয়েন্টে আকর্ষনীয় স্থান। গাড়ী থেকে নেমেই মেলার অবস্থান। ব্যাপক আলোক সজ্জা হয়েছে। পানির ঝিলিক দেখতে ইলেকট্রনিক্স বাতি দেওয়া হয়েছে কৃত্রিম ঝর্নায়। মেলার অন্যতম আকর্ষন হবে এ পানির ঝর্না। প্রবেশ পথে মেলার ভিতরে পানির ফোয়ারা সজ্জিত হয়েছে। পানির রং দৃস্টিনন্দন করতে বিদ্যুতের ঝিলিক বাতি সংযোজন করা হয়েছে। রংধনুর সাত রং এ পানিতে দৃষ্টিনন্দন। আয়োজক কমিটির পৃষ্টপোষক ও উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কাসেমের ছোট মোহাম্মদ ইকবাল জানায়, আমরা পেকুয়ায় এ প্রথম ব্যতিক্রমধর্মী মেলাটির আয়োজন করছি। সংষ্কৃতির বিকাশ ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের অর্থনৈতিক বিকাশ সাধন ঘটাতে আমরা এমন উদ্যোগ নিয়েছি। উপভোগ্য আয়োজন হবে এ পেকুয়ায়। মানুষের মননশীল ও চিত্তের বিকাশ ঘটতে এমন আয়োজন অবশ্যই প্রয়োজন। আশা করছি পেকুয়ার মানুষ এ আয়োজন উপভোগ করবে।

Top