সদর হাসপাতালে তালা দেয়া, রোগীদের অবহেলা ও অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদে সমাবেশ

31131161_1424905247615824_7946687679502443021_n.jpg

সদর হাসপাতালে তালা দেয়া, রোগীদের অবহেলা ও অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে এই প্রতিবেশ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা কক্সবাজার জেলা সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের সভাপতি মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে ‘‘আমরা কক্সবাজার বাসী’’র উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদ সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। যুবনেতা নাজিম উদ্দীনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার সোসাইটির সভাপতি কমরেড গিয়াস উদ্দীন, সমুদ্রকণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক অধ্যাপক মঈনুল হাসান পলাশ, অধ্যাপক হাসেম উদ্দীন, কমরেড সমীর পাল, ঐক্যনেপের আহবায়ক রবিন্দ্র বিজয় বড়ুয়া, সমূদ্রধারা পত্রিকার সম্পাদক কামাল উদ্দিন রহমান পিয়ারু, কমরেড অনীল দত্ত, পৌর কমিশনার (প্যানেল মেয়র) রফিকুল ইসলাম, জেলা জাতীয় পার্টির সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন দোলাল, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি সত্যপ্রিয় চৌধুরী দোলন, তেল-গ্যাস রক্ষা জাতীয় কমিটির জেলা সদস্য সচিব কলিম উল্লাহ, হেমন্তিকা শিল্পীগোষ্ঠীর পরিচালক অনিল দত্ত, সকালের কক্সবাজার পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক শেখ মেহাম্মদ মহসিন, দি কক্সবাজার ম্যাসেজ ডট কম এর নির্বাহী সম্পাদক ও বার্তা প্রধান এম.ইউ.আর মাসুদ, শ্রমিক নেতা ফরিদ আহম্মদ, শিল্পি সনজিত ধর, পরিকল্পিত কক্সবাজার আন্দোলনের সমন্বয়ক আব্দুল আলীম নোবেল, ব্যবসায়ী উজ্জল সেন প্রমুখ।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল যখন হরতাল/অবরোধের ডাক দেয় তখন হাসপাতাল সহ কিছু সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান সব কর্মসূচীর বাইরে থাকে। কিন্তু একটি গুরুত্বপূর্ণ জনসেবামূলক প্রতিষ্ঠান হাসপাতালে তালা দিয়ে ইন্টার্ণী ডাক্তাররা কক্সবাজারের জনগণ ও প্রশাসনকে জিম্মি করেছে। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার পূর্বক আহত ব্যক্তিকে দ্রুত উন্নত চিকিৎসা প্রদান, হাসপাতালে তালা লাগিয়ে জনদুর্ভোগ সৃষ্টির তদন্ত পূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানোগ ব্যবস্থা গ্রহণ, মিথ্যা মামলা দায়েরকারী ও সার্টিফিকেট প্রদানকারীদের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ, সর্বোপরী সৃষ্ট ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত পূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে হবে।
পাশাপাশি সদর হাসপাতালকে ২৫০ শয্যা থেকে ৫০০ শয্যা উন্নীত করণের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বন্ধ করে দ্রুত ৫০০ শয্যার উন্নয়ন কাজ আরম্ভ করা, সার্বক্ষণিক হাসপাতালের চিকিৎসার সু-ব্যবস্থা নিশ্চিত করা, বন্ধ আই.সি.ও বিভাগটি চালু করা, সর্বোপরী সদর হাসপাতালের ইন্টার্ণী ডাক্তার সহ সকল ডাক্তার কর্মচারীদের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন সুনিশ্চিত করার দাবি জানান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাবেক ছাত্রনেতা ও সাংবাদিক ওয়াহিদুজ্জামান রুবেল, এডভোকেট আব্দুর রহিম, এডভোকেট আহসানুল্লাহ, শিল্পী এস.এম সিরাজ, যুবনেতা ফরিদুল আলম হেলালী, সাংবাদিক শহিদুল্লাহ কায়সার, সাংবাদিক শফিক, যুবনেতা আল মনছুর, সাহাব উদ্দিন, টোয়্যাক এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এম.এ হাসিব বাদল, লাবণী ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কাশেম আলী, শফিকুল ইসলাম, মো:ইয়াকুব, মো: হামিদুল হক, মোহাম্মদ সেলিম, নাজমুল হোসেন মিঠু, রফিকুল ইসলাম সোহেল।

সভা শেষে নেত্রীবৃন্দ কক্সবাজার জেলা প্রশাসনকে উপকেরাক্ত দাবী-দাওয়াসহ একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন। দাবি দাওয়া বাস্তবায়নের দাবিতে একটি কর্মসূচী ঘোষণা করেন। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে আগামী ২৪-২৮ এপ্রিল তারিখ পর্যন্ত বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে মতবিনিময় ও জনমত গঠন, পথসভা, ২৯ এপ্রিল কক্সবাজার জেলায় পূর্ণদিবস হরতাল।

Top